প্রসঙ্গ: “দ্য পলিটিক্যাল প্রস্টিটিউট অব বাংলাদেশ”


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। বাংলাদেশের বহুল আলোচিত ও বিতকর্িত এক রাজনীতিক হলেন মওদুদ আহমদ। পেশায় একজন আইনজীবী এবং ব‍্যারিস্টার ডিগ্রিধারী। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ করতেন। শুধু তাই নয় এই মওদুদ আহমদই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র ব‍্যক্তিগত সহকারিও ছিলেন। সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত‍্যাকান্ডের পর জেনারেল জিয়াউর রহমান’র আমলে মওদুদ মন্ত্রিত্ব পান। মুক্তিযোদ্ধা জিয়ার হত‍্যাকান্ডের পর আরেক জেনারেল এইচ এম এরশাদ’র আমলে মওদুদ প্রধানমন্ত্রি এবং ভাইসপ্রেসিডেন্টও হয়েছিলেন। পরে এরশাদের দল ছেড়ে আবার বিএনপিতে ফেরেন। তখনও গুরুত্বপূণর্ আইনমন্ত্রির দায়িত্ব পান জিয়া পত্নী খালেদার নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে।
এই বহুরুপী মানুষটির সম্পকর্ে ফেইসবুকে একটা মন্তব‍্য পড়লাম ১ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে। অষ্ট্রেলিয়াপ্রবাসী বাঙালি সাংবাদিক ফজলুল বারী এই মন্তব‍্যটি লিখেছেন। “দ্য পলিটিক্যাল প্রস্টিটিউট অব বাংলাদেশ” এই মন্তব‍্যের ওপর আমি ছোট্র একটা মত লিখেছিলাম ফেইসবুকে।
আমি লিখেছিলাম, “বারী ভাই, যারা শুধু দল বদল, সুবিধা আদায় বা মিথ‍্যা কথা বলেন তারাই কী কেবল রাজনৈতিক “বেশ‍্যা”? যারা টাকার বিনিময়ে কালো টাকার মালিকদের দলীয় মনোনয়ন দেন কিংবা গণতান্ত্রিক পন্থাকে দল ও সরকার পরিচালনায় কাজে না লাগিয়ে ব‍্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দকে অত‍্যধিক গুরুত্ব দেন/ তারা কী রাজনৈতিক “বেশ‍্যা” নন? এক্ষেত্রে বড় দুই রাজনৈতিক দলের কর্ণধারদের বিষয়ে আপনি কী লিখবেন? মাফ করবেন আমাকে!”
পাল্টা মত জানিয়ে বারী ভাই আরও লিখেছেন, “বড়দের অনেক তকমা আছে, কিন্তু মওদুদের বেশ্যা তকমাটি কেড়ে নেবার অধিকার কারো নেই, আর যারা টাকার বিনিময়ে নমিনেশন দেয় তাদের কথা বলতে গেলে উপরে থু থু ছোঁড়ার মতো তা দেশের মানুষের ওপরও চলে আসবে। কারন জেনেশুনে ওদের ছাড়া আর কাউকে ভোট দেয় না দেশের মানুষ। আইভীর দৃষ্টান্ত যত্রতত্র নেই–”
প্রতিউত্তরে আমি লিখেছি, “সবকিছুর মূলে দুনর্ীতি আর দুবৃর্ত্তায়নযুক্ত রাজনীতি! আপনি মানেন কিনা জানি না। ব‍্যতিক্রম আছে সত‍্য বটে। তবে এই কলুষিত রাজনীতির চৌহদ্দির মাঝে জনতাকে বন্দি করে ফেলা হয়েছে। কাজেই সাধারণ মানুষকে দুষে লাভ কি? আইভিরা ব‍্যতিক্রম, কারণ সেখানকার পরিস্থিতিটা এবার একেবারেই অন‍্যরকম। এবং আপনার কথানুযায়ীই বলা যায়, জনগণ সবসময় সঠিক কাজটিই করেন যদি তাদের কাছে অপশন থাকে। যেমনটি তারা নারায়ণগঞ্জে বীরত্বের সাথে দেখিয়ে দিলেছেন। বড় বড় নেতা-নেত্রী যারা সন্ত্রাসের রাজাদের পছন্দের লোককেই নমিনেশন দিয়েছিল। দেশের রাজনীতি ঠিক ট্রাকে আসলে সবকিছুই আপনাআপনি সঠিকভাবে চলবে বা চলে আসবে। এতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই আমার। যাহোক, আপনি অভিজ্ঞ মানুষ, সাংবাদিক, লেখক। আমি একটা নাদান নেহায়তই ছোট একটা মানুষ যার কোন গুণ নেই। তবুও বলবোগোটা সমাজ ব‍্যবস্থাটাকেই পচিয়ে দেয়া হেয়ছে বা হচ্ছে, সেটা গণতন্ত্র রক্ষার নামে কিংবা ব‍্যক্তি ও দলতন্ত্রকে বাঁচিয়ে রাখতে যে নামেই হোক না কেন। রাজনৈতিক আদশর্ কিংবা পছন্দ প্রত‍্যেকটি মানুষেরই থাকবে বা থাকতে পারে, কিন্তু সবকিছুর ভেতরেই ন‍্যায‍্যতার চচর্া হওয়া চাই।” ছবি-ফেইসবুক থেকে নেয়া

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s