বেসরকারি টিভি চ‍্যানেলগুলি হয়ত ভাসুরের নাম নিতে চায় না! সাগর-রুনি হত‍্যাকান্ড নিয়েও তাদের মাথাব‍্যথা নেই কেন?

জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। “বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ‍্যানেলগুলি যেন ‘ভাসুরের নাম নিতে চায় না’ এখন।” বিএনপির ১২ মার্চের মহাসমাবেশের খবর সরাসরি চ‍্যানেলগুলি সম্প্রচার করবে কিনা তা নিয়ে আজ ১০ মার্চ পর্যন্ত চ‍্যানেলগুলি কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। সরকারের ভয়ে নাকি সেলফ সেন্সরশীপের গাড়াকলে পড়েছে চ‍্যানেলগুলি তা পরিস্কার নয়। অনলাইন প্রকাশনা বিডিনিউজ২৪ কিছুক্ষণ আগে “১২ মার্চ নিয়ে টেলিভিশনগুলো দ্বিধান্বিত” শিরোনামে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। অতীতে আমরা দেখেছি এধরণের বড়রকমের বিশেষ করে রাজনৈতিক পরিস্থিতি যখন উত্তপ্ত অবস্থার মধ‍্য দিয়ে অতিক্রান্ত হয় তখন চ‍্যানেলগুলি সরাসরি সম্প্রচার করে এধরণের মহাসমাবেশের খবর। খালেদা জিয়া কিংবা বিরোধীদলের বক্তব‍্য যাতে জনগণের কাছে সরাসরি না পৌঁছে কিংবা জনসভায় জনসমাগম কেমন হলো তা যাতে দেশবাসি সরাসরি জানতে/দেখতে না পারেন তারজন‍্য নাহয় সরকার টিভি চ‍্যানেলগুলির ওপর চাপ দিতে পারে মহাসমাবেশের খবর সরাসরি সম্প্রচার না করার জন‍্য। মহাসমাবেশে জঙ্গি বা যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ থেকে কোন ধরণের নাশকতামূলক কর্মকান্ড ঘটতে পারে এমন আশংকাতো সরকারের পক্ষ থেকেই বিশেষ করে ক্ষমতাসিন দল আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে করা হয়েছে। কাজেই নানাদিক দিয়েই এবারের মহাসমাবেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি ঘটনা। মহাসমাবেশের আরমাত্র ৩০ থেকে ৪০ ঘন্টা বাকি। অথচ অধিকাংশ টিভি চ‍্যানেল তা সরাসরি সম্প্রচার করবে কিনা সেবিয়ষে এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। এটা কী বিশ্বাসযোগ‍্য?
সাংবাদিক সাগর-রুনি হত‍্যাকান্ড নিয়ে ‘কোন রিপোর্ট’ প্রকাশ বা প্রচার করা যাবে না এমন নির্দেশনা জারি করলো হাইকোর্ট। অথচ প্রশাসন খুনিদের আজও ধরতে পারলো না। খুনের রহস‍্যও উন্মোচিত হলো না রহসজনকভাবে। আজ অবধি হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে কোন সাংবাদিক, চ‍্যানেল কতর্ৃপক্ষ বা সাংবাদিক সংগঠন আপিল করেনি। অনত:তপক্ষে মাছরাঙ্গা টিভি ও এটিএন বাংলা এই কাজটি করতে পারতো। কারণ সাগর মাছরাঙ্গা টিভির বাতা সম্পাদক আর রুনি ছিলেন এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার। কিন্তু তারা হাত গুটিয়ে রেখেছে। অথচ সাগর-রুনি হত‍্যামামলাটি ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে গণমাধ‍্যমের নিরবতার কারণেই। সাগর-রুনি হত‍্যামামলার ভবিষ‍্যত নিয়ে গণমাধ‍্যম বা টিভি চ‍্যানেল কিংবা সংবাদপত্রগুলির যেন কোন মাথা ব‍্যথাই নেই!
বিডিনিউজ২৪ এর রিপোর্ট মতে, “এটিএন বাংলার বার্তা প্রধান জ ই মামুন বলেন, “বিএনপির মহাসাবেশ সরাসরি সম্প্রচার করা কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই।” আর মাছরাঙ্গা টিভির বার্তা প্রধান শাহ আলমগীর জানিয়েছেন, মহাসমাবেশ সরাসরি সম্প্রচার করা হবে কিনা সেব‍্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। আর চ‍্যানেল আইয়ের বার্তা প্রধান জানেনই না এবিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে কিনা! চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, এ ধরণের কোনো পরিকল্পনা আছে কি না তা খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে।” আসল কথা হলো দেশের প্রতিটি টিভি চ‍্যানেলের (ব‍্যতিক্রম হয়ত আছে) মালিকপক্ষের আছে নিজ নিজ ব‍্যবসাপাতি। বিরোধীদলের মহাসমাবেশের খবর সম্প্রচার করে সেই ব‍্যবসাপাতির ওপর সরকারের খড়ক নেমে আসুক তা হয়ত কেউই চাইছে না। সবমিলিয়ে এমন প্রশ্ন ওঠা কিন্তু অস্বাভাবিক নয়। আর তা হলো দেশের গণমাধ‍্যম আসলে কী ননূ‍্যনতম স্বাধীন? নাকি সেখানে গণতন্ত্রের বিন্দুমাত্র চর্চা আছে? ছবিটি ফেইসবুক থেকে নেয়া।

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s