সাগর-রুনি-খালাফের খুনিরা ধরা পড়েনি: ১২ মার্চকে কী সরকার ভয় পাচ্ছে?

জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। হাসিনার মহাজোট সরকার কী তবে ১২ মার্চের কর্মূচীকে ভয় পাচ্ছে? প্রধান বিরোধী দল বিএনপি যাদের ওপর ভর করে যুদ্ধাপরাধী জামায়াত বাংলাদেশে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠা পেয়েছে! যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া বেশ কয়কেজন জামায়াত-বিএনপি নেতার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু‍্যনালে বিচার চলছে। এই অবস্থায় বিএনপি রাজধানী ঢাকায় ১২ মার্চ মহাসমাবেশের ডাক দিয়েছে। সভা-সমাবেশ করা প্রতিটি রাজনৈতিক দল বা নাগরিকের সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক অধিকার। এই অধিকার দিতে চায় না স্বৈরাচারি একনায়ক সরকারগুলি। কিন্তু যখন কোন গণতান্ত্রিক সরকার (হোক না সেই গণতন্ত্র একটা শিশু প্রতিবন্ধি বা ভঙ্গুর!) এই অধিকারকে নানাভাবে খর্ব করতে চায় তখন সেই সরকারকে কী আর কোনভাবে গণতান্ত্রিক সরকার বলা যায়? একটি গণতান্ত্রিক সমাজ ব‍্যবস্থায় (যদি সতি‍্যকারের কার্যকর গণতন্ত্র বলবৎ থাকে) বিরোধী দল সরকারের নানান ভুল-ত্রুটি তুলে ধরে সংসদে আলোচনা করবে, সহিষ্ণুপন্থায় জনমত সংঘটিত করবে। এটাইতো স্বাভাবিক। সরকার যদি ভালো কাজ করে, জনকল‍্যাণে নিজেদের উৎসর্গ করে তাহলে বিরোধীদল সরকারকে ফেলে দেয়ার জন‍্য যতই লাফালাফি করুক তাতে কোন কাজ হবে না। বরং উল্টোটিই ঘটে, সরকারের জনপ্রিয়তা বাড়ে। কিন্তু সরকার যদি পরিকল্পিতভাবে বিরোধীমতকে, বিরোধীদের সভা-সমাবেশকে স্তব্ধ বা বন্ধ করতে চায় তার ইতিবাচক ফল কিন্তু যায় বিরোধীদের ঘরেই। বিএনপির ঢাকার সমাবেশ ঘিরে হাসিনার সরকার ও সরকারি দলের কর্মকান্ডগুলিকে কী জনগণ ভালো চোখে দেখছেন? বিরোধী দল যদি দেশে নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা বা পরিকল্পনা করে থাকে তবে কোথায় কিভাবে কারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কী সরকার কোন তথ‍্য-প্রমাণ জাতির সামনে হাজির করতে পেরেছে আজ অবধি? সরকারি দল বিরোধীদের সভা-সমাবেশকে মোকাবেলা করবে রাজনৈতিকভাবে। কিন্তু তা কী বাংলাদেশে কখনও দেখা গেছে দেশটির জন্মের ৪০ বছরের ইতিহাসে? সরকারের কর্মকান্ড, সাফল‍্যগুলির মূল‍্যায়ণতো করবে জনগণ। বিরোধীদলের কর্মকান্ডও জনগণ পর্যবেক্ষণ করেন সর্বদা। যে প্রশ্ন দিয়ে লেখাটি শুরু করেছিলাম সেই প্রশ্নে ফিরে আসা যাক। ১২ মার্চের বিরোধীদলের সমাবেশকে সরকার দমন বন্ধ করতে চায় বা ভন্ডুল করতে চায় সমাবেশের আয়োজকরা বারবার এমন অভিযোগ তুলছে। বিরোধীদের এমন অভিযোগ সত‍্য কি মিথ‍্যা সেই প্রশ্নের উত্তরে না গিয়েও বলা যায় যে, সরকার ও সরকারি দলের কর্মকান্ড জনমনে নানান প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এই প্রশ্নগুলির উদ্ভব হয়েছে সরকার ও সরকারি দলের কর্মকান্ডের মধ‍্য দিয়েই। সরকারি দল বিএনপির ডাকা সমাবেশের দিনই সমাবেশ ডেকেছিল, ১২ মার্চের আগে পিছে সরকারি দল কর্মসূচী দিয়েছে, সরকার ঢাকার হোটেলগুলিতে নতুন বোর্ডার নিবন্ধন বন্ধ করেছে, দেশজুড়ে গণগ্রেফতার শুরু করেছে পুলিশ তথা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী (আংশিক হলেও এই অভিযোগের সত‍্যতা মিলছে বাংলাদেশের মিডিয়ার রিপোর্টে)। আর সর্বশেষ সরকার চাঁদপুর-ঢাকা লঞ্চ সার্ভিস বন্ধ করেছে। পরিবহন মালিকরা বলছেন, “প্রশাসনের অলিখিত নির্দেশ, হয়রানি এবং নিরাপত্তার কারণে রবি ও সোমবার দূর পাল্লার বাস বন্ধ রাখতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।” পরিবহন মালিকদের উদ্ধতি দিয়ে বিডিনিউজের এক রিপোর্টে এই তথ‍্য প্রকাশিত হয়েছে আজ। এসবকিছুই সরকার বিরোধী দলের মহাসমাবেশকে বানচাল করতেই করছে বলে জনমণে একটি ধারণা জন্মেছে। সরকারের এমন কর্মকান্ড “নিজের পায়ে কুড়াল মারা”র মতোই অবস্থা। বাংলাদেশে হাসিনার মহাজোট সরকার ব্রুটমেজরিটির সরকার। তাসত্ত্বেও তারা বিরোধীদের রাজনৈতিক একটি কর্মূচীকে কেন ভয় পাচ্ছে, তা আমরা বুঝতে পারি না। তবে বিরোধী দল যদি এই কর্মসূচীর মাধ‍্যমে যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার চেষ্টা করে, ধ্বংসাত্মক কোন ঘটনার পরিকল্পনা করে তা কোনভাবেই দেশের মানুষ মেনে নেবে না। সরকার সাংবাদিক সাগর-রুনির খুনিদের ধরতে পারেনি। সৌদি কূটনীতিক খালাফ হত‍্যাকারিরাও কেউ গ্রেফতার হয়নি আজও। এমনই এক পরিস্থিতিতে আমাদের স্বদেশে আজ এক রুদ্ধশ্বাস অবস্থা বিরাজ করছে। আমরা আশা করবো বিরোধীদল তাদের কর্সূচীকে শান্তিফূর্ণ অবস্থা তথা সহিষ্ণুতার ভেতরেই রাখবে। আর সরকার ও সরকারি দলও সকলরকমের দমন-পীড়ন ও অন‍্যায‍্যতার পথ পরিহার করবে। সাগর-রুনি, খালাফসহ সকল হত‍্যাকান্ডের বিচার নিশ্চিত করা এবং জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব সরকারেরই। খুন বেডরুমে হোক আর অভিজাত এলাকার সড়কেই ঘটুক, খুন খুনই। একটি খুনের ঘটনায় জড়িত খুনিদের শনাক্ত করে গ্রেফতার ও বিচারে ব‍্যর্থতা কিন্তু পরবর্তী হত‍্যাকান্ডের পথ রচনা করে। এই সত‍্যটি উপলব্ধি করার ক্ষমতা কী সরকারের নেই? ছবিটি ফেইসবুক থেকে নেয়া। editor.eurobangla@yahoo.de, http://www.eurobangla.org/

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s