স্বরাষ্ট্রমন্ত্রির চা-মন্ত্র ।। সাগর-রুনি হত‍্যা মামলার তদন্ত ও সাংবাদিকদের আন্দোলন!


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ।। সাগর-রুনির খুনি ধরা পড়েনি, র‍্যাব বেপরোয়া, মুরুব্বিরা হাসিনা-খালেদার মান ভাঙানোর চেষ্টায় রত, গোলাম আজম (যুদ্ধাপরাধী) জেলে বসে বাড়ির রান্না করা ভাত পান, ড. মিজানের অকার্যকর (হয়তবা লোকদেখানো!) চিৎকার, প্রগতির আমলে সাতক্ষীরায় সংখ‍্যালঘু নির্যাতন, সাংবাদিকদের রুটি-রুজির আন্দোলন, সক্ষম পুরুষের নতুন আস্ফালন, দেশজুড়ে অন্ধকার, কৃষিজমি ফাটছে বেশুমার, চারিদিকে দুর্নীতি আর চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম, আরও কত ভালো খবর! হায়রে মাতৃভূমি, স্বদেশ, সোনার বাংলা আমার!
আমার একজন প্রিয় সাংবাদিক ফেইসবুকে একটি স্ট‍্যাটাসে লিখেছেন “কোন ভাল খবর নেই…। এটা পড়ার পড়ে কৌতুহল জাগলো মনে। ভাবলাম হয়ত আরও কোন বড় ধরণের ঘটনা ঘটনা ঝটলো জন্মভূমিতে? চটজলদি বিডিনিউজে গেলাম। প্রথমেই চোখ গেলো “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় চায়ের দাওয়াতে সাংবাদিক নেতারা” রিপোটর্টির ওপর। যেখানে প্রায় দুই মাসেও দুইজন সহকর্মী হত‍্যার কিনারা করতে পারলো না এই মন্ত্রি, খুনিকে ধরলো না, তদন্তের বিন্দুমাত্র অগ্রগতির খবর দিতে পারলো না সাহারা। সেখানে আবার চায়ের দাওয়াত! আর আমরা বেহায়ার মতো দাওয়াত কবুল করলাম, গেলাম তার রাষ্ট্রীয় বাসভবনে। শুধু চা নয় চায়ের সঙ্গে টাও খেলাম!
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), জাতীয় প্রেসক্লাব এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নেতারা এবার প্রীত ‘হইলেন’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রির চা পান করে! আগে প্রধানমন্ত্রির কণ্ঠে গান শুনে প্রীত ‘হইয়াছিলেন’ যেভাবে! সাহারা ম‍্যাডাম আর পুলিশের আইজি নতুন করে কিছু বলেননি। সেই পুরনো কথাগুলিই আবার বলেছেন নতুন করে। আর সাহারা যে কী মন্ত্র পড়ে ফুঁ দিলেন চায়ের কাপে যাতে চুমুক দেবার পরই সাংবাদিক নেতারা মশগুল হয়ে গেলেন! এতটাই মুগ্ধ হলেন যে ৮ এপ্রিলের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট কর্মসূচীটি স্থগিত করে নিলেন সাংবাদিকরা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রিতো এমন নিস্ফল আশ্বাসের বাণী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকেই শুনিয়ে আসছেন। তার একটি কথাও সত‍্য হয়নি আজও। তবে সাংবাদিক নেতারা কেন বিমুগ্ধ হলেন তার ‘মিথ‍্যা’ প্রবোধে তা আমরা জানি না! কিন্তু এর পরিণাম যে খুনিদেরই জন‍্য সৌভাগ‍্য বয়ে আনবে তা কী আমরা বুঝতে পারছি না? সাংবাদিকরা কী জেনেশুনে বিষ পান করলেন না? আন্দোলন কর্মসূচী স্থগিতের সিদ্ধান্তটা কী গণতান্ত্রিক রীতি অনুসরণ করে গ্রহণ করেেন সাংবাদিক নেতারা? নাকি কেবল যারা চা পান করতে গিয়েছিলেন তারাই এই সিদ্ধান্তটা নিয়েছেন?
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রি বলেছেন, “সাগর-রুনি হত‍্যাকান্ডের তদন্ত চলছে। তদন্তের অগ্রগতি আছে। শিগগিরই আসামিদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি দেশে এ পর্যন্ত যতো সাংবাদিক নিহত হয়েছে তাদের বিষয়ে তদন্ত করতে পুলিশকে আমি নির্দেশ দিচ্ছি।” আমাদের প্রশ্ন হলো এমন বক্তব‍্যতো আপনি শুরু থেকেই দিয়ে আসছেন। কিন্তু কোন কার্যকর ফল মিলছে না। যেখানে মাত্র দুইজন সাংবাদিক সাগর-রুনির খুনিদেরই বের করতে পারছেন না, কিনারা করতে পারছেন না, তদন্ত করতে ব‍্যর্থ হলেন সেখানে ৩১ সাংবাদিক হত‍্যাকান্ডের (এ পর্যন্ত নিহত) তদন্ত করবেন আপনি? এটাও আমাদের বিশ্বাস করতে হবে, আস্থা রাখার মতো কোন কাজ করেছেন কি আপনি?
সাগর-রুনি তোমরা দেখো আমরা কত বেহায়া! তোমাদের খুনিরা ধরা পড়ুক আর না পড়ুক। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রি আর যাই করুক, ব‍্যর্থ হোক আর সফল হোক, তার হাতের চা পানে আমরা বেশ তৃপ্তি পেলাম। এই লেখাটি যখন লিখছিলাম তখন ফেইসবুকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রিকে পরোক্ষভাবে সমর্থন করে পুলিশ বিভাগের ব‍্যর্থতার কথা তুলে ধরলেন একজন। তিনি সাগর-রুনির হত‍্যা মামলার প্রসঙ্গ টেনে লিখেছেন যে পুলিশের দক্ষতা কোথায়? আমি বলবো অন‍্য কথা। পুলিশ বিভাগে অনেক দক্ষ মানুষ আছেন। রাজনীতির দুবর্ৃত্তায়ন ও রাজনীতিকদের দুর্নীতি বন্ধ হলেই সব কিছু সোজা হয়ে ওঠবে, এতে কোন সন্দেহ নেই। পুলিশতো তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারে না রাজনৈতিক শয়তানি হস্তক্ষেপের কারণেই। আর পুলিশের সেই সুযোগ-সবিধাও নেই যেটা র‍্যাবের আছে। রাজনীতি, রাজনীতিক ঠিকতো সব ঠিক। সবকিছুর মূলেই নষ্ট রাজনীতি, পরিবারতন্ত্র, দুর্নীতি!
সাংবাদিকরাও সরকারের ৪৮ ঘন্টা, প্রণিধানযোগ‍্য অগ্রগতি, তদন্ত চলছে, খুনিরা অবশ‍্যই ধরা পড়বে ইত‍্যাদি তত্ত্বের ভেতরে নিজেদেরকে সমর্পণ করে দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রির বাসায় চা পানের মধ‍্য দিয়ে। সাগর-রুনির হত‍্যা মামলার তদন্ত চলবে অনন্তকাল ধরে! তারপরো আসল খুনিদের ধরা হবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহমুক্ত হবার কোন কারণ নেই।
তাই আসুন প্রবাসী বাঙালি/বাংলাদেশী ভাই-বোনেরা আমরা ঐক‍্যবদ্ধ হাই। খালেদা-হাসিনা যিনিই ক্ষমতায় থাকুক আর আসুক তাতে আমাদের কিছু যায় আসে না। তবে আমরা চাই দেশটা চলুক আইন, সংবিধান ও নিয়ম-নীতির মধ‍্য দিয়ে। বন্ধ হোক খুন-খারাপি, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, দুর্নীতি ও বিনা বিচারে মানুষ হত‍্যা। সাগর-রুনিসহ সকল হত‍্যা-খুনের বিচার দাবিতে আমরা হাতে হাত মিলিয়ে এককাতারে গিয়ে দাঁড়াই। আর সরকারের মন্ত্রি, প্রতিমন্ত্রি, সংসদ সদস‍্য এমনকি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রিকে বিদেশে ঘেরাও করি, প্রতিহত করি। তাঁদেরকে বাধ‍্য করি সাগর-রুনির খুনিদের ধরতে এবং খুনের রহস‍্য জাতির কাছে খোলাসা করার জন‍্য। একবার ভাবুন বিদেশে কষ্ট করে আপনি আমি যে অর্থ পাঠাই দেশে। সেই টাকা দিয়েই হাসিনা বা খালেদারা দেশে নিজেদের আখের গোছাবেন তা কী হতে দেয়া যায়? জনগণ ও আমাদের পাঠানো টাকায়তো র‍্যাব-পুলিশের বেতন-ভাতাপ্রদান ও পোশাক কেনা হয়। তবে তারা কেন জনগণের বন্ধু হতে পারবে না? ছবি ফেইসবুক থেকে নেয়া।

Advertisements

2 responses to “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রির চা-মন্ত্র ।। সাগর-রুনি হত‍্যা মামলার তদন্ত ও সাংবাদিকদের আন্দোলন!

  1. We should remember, if journalist is not safe, the whole nation not safe…not a single person will get justice…Hand rise and voice against the killing or torture the journalists…

  2. Aar kotodin eishob fazlami cholbe?? I live in a totally different world where police comes to answer your call within 2 min to check whether your neighbour is bothering you with noise polution or not. Yes thats what happened yesterday when I called 911 the emegency number to complain about my upstair neighbor making noises. They came within 2 min ( I checked the time) and assured me to go and talk to them. I can not even dream of comparing this kind of service with Bd police but at least when i read the newspapers, it forced me thinking why shouldnt people have the right to live and die normally!!!! And the bullshit Govt is busy insuring their own future. Really feeling ashamed to be a Bangladeshi,

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s