ইলিয়াস নিখোঁজ বদর-রশিদের জীবনদান: এ বধ্যভূমিতে সাগর-রুনির খুনিদের আশ্রয়দাতাদের প্রতি মহানুভবতা!


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ।। এতো আমার, আমাদের মায়ের ভূমি নয়। ওটা যেন হত্যা-গুম-অপহরণ আর বিনাবিচারে মানুষ হত্যার বধ্যভূমি!
হাসিনা-খালেদার ইচ্ছে যেন আমাদের সোনার বাংলা একদিন আফগানিস্তান বা পাকিস্তান হয়ে যায়! সে পথই উনারা রচনা করে চলেছেন প্রতিদিন!
মহান সংসদের এমপি হোস্টেলে নারীর গলিত লাশ মিলছে। থানার ভেতরে রাজনৈতিক কর্মীকে ঝুলিয়ে পেটানো হচ্ছে, চোখ বেঁধে নির্যাতন করছে পুলিশ। এমন বাংলাদেশেইতো চেয়েছিলাম আমরা!
সমকালের রিপোর্টে পরিস্কার যে ইলিয়াসকে সরকারই নিখোঁজ কিংবা অপহরণ করেছে! যদি তাই না হবে তবে ১০টি শর্ত কেন আসছে? শুধু জান গেলো অসহায় বদর আর রশিদের। গদি রক্ষা আর চেয়ারে বসার লড়াইয়ে আরও যে কত মানুষের প্রাণ বলি যাবে আগামি দিনগুলিতে, কে বলতে পারে তার হিসাব?
এভাবে বাস চালিয়ে, মানুষ পুড়িয়ে একজন ক্ষমতার মসদে যেতে চাইছেন। অন্যজন গুম-অপহরণ আর খুনিদের রক্ষা করে ব্যর্থতার ঝুলি মাথায় নিয়ে গদি রক্ষার সংগ্রাম করছেন।
সাগর-রুনির খুনের মামলায় তদন্ত সংশ্লিষ্টরা ব্যর্থতার দায় স্বীকার করলেও আদালত তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। সাগর-রুনির খুনিদের শনাক্ত করার বিষয়ে থেমে গেছে সবার চেচামেচি। সাংবাদিকরাও নিরব, ব্যবসানির্ভর মিডিয়াও চুপসে গেছে। এ যেন খুনিদের কাছে স্বেচ্ছা সমর্পণ, খুনিদের আশ্রয়দাতা-রক্ষাকারিদের প্রতি মহানুভবতা!
অগণতান্ত্রিক মানসিকতা, অসহিষ্ণু আচরণ, ক্রোধ, হানাহানি, হত্যা-গুম, হিংসা, স্বার্থপরতা, ক্ষমতার লোভ আর টাকার নেশা বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনকে শয়তানপুরিতে পরিণত করেছে। হে প্রভূ তুমিতো সবই জানো, বোঝ। কেন নিরব আছো তুমি। নিরবতা ভেঙ্গে সচল করো তোমার তলোয়ার। কেটে সাফ করে দাও এই দুর্বৃত্ত সংস্কৃতির ডালপালা, বাঁচাও মানুষ ও দেশ।
ছবিতে খুলনার এক থানার ভেতরে ছাত্রদলের স্থানীয় নেতাকে উপরে ঝুলিয়ে পেটাচ্ছে পুলিশ। অপর একজনকে চোখ বেঁধে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। এই হলো আজকের বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি! ছবিটি আমার দেশ থেকে নেয়া।

Advertisements

One response to “ইলিয়াস নিখোঁজ বদর-রশিদের জীবনদান: এ বধ্যভূমিতে সাগর-রুনির খুনিদের আশ্রয়দাতাদের প্রতি মহানুভবতা!

  1. বাংলাদেশের ক্ষমতার পালাবদলের রাজনীতিতে তিনটি রাজনৈতিক দলের শাসন দেখিছি | এদের কেউ মন্দ আর কেউ মন্দের ভালো | প্রকৃত সুশাসন কেউই দিতে পারেনি | তারা চাইলেও পারবেনা | কারণ সবগুলোই সেক্যুলার রাজনৈতিক দল | সেক্যুলার রাজনীতির সীমাবদ্ধতা আছে | একমাত্র আল্লাহর দেয়া শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই সুশাসনের প্রতিষ্ঠা সম্ভব | যেদিন দেশের বেশির ভাগ মানুষ এটা উপলব্ধি করতে পারবে সেদিন থেকেই পাবে স্বপ্নপুরীর সন্ধান …

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s