সাংবাদিক নির্যাতনের মহাউৎসব: সবকিছুই ওই দুবর্ৃত্ত রাজনীতির হাতেই আটকা পড়েছে!


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। বাংলাদেশে কী কোন যুদ্ধ চলছে? দেশে কী হচ্ছে? কী হতে যাচ্ছে? কী হবে দেশের ভবিষ‍্যৎ, কী আছে দেশের ভাগে‍্য? একের পর এক সাংবাদিক নির্যাতন ও হত‍্যার ঘটনাগুলির সঙ্গে কী কোন বিশেষ শক্তি জড়িত? সেই শক্তি কী দেশের সরকারের চেয়েও ক্ষমতাধর? যা ঘটছে তা কী পরিকল্পিত কোন ঘটনার পূর্বমহড়া? দেশে কী বড়ধরণের কোন ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে? বিরামহীনভাবে চলা সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাগুলি কী অনাগত সেই শক্ত কোন ষড়যন্ত্র বা ঘটনা ঘটানোর আলামত? চারিদিকে একটা আতংকাবস্থা। কেমন জানি একটা ভয়, আতংক, হতাশা, উদ্বেগ, নিরাপত্তাহীনতা ভর করছে দেশের মানুষের মনে। মহাজোট সরকারের ভেতরেই কী মোশতাকরুপী কোন মীরজাফরের আমদানি বা আবির্ভাব ঘটেছে? সরকার কী বুঝতে পারছে না যে সব ঘটনাই সরকারের বিরুদ্ধেই যাচ্ছে? নাকি জ্বি-হুজুর, জ্বি নেত্রী, জ্বি-আপাদের খপ্পড়ে পড়েছে সরকার? সরকারের ভেতরের কোন অংশই কী তবে এসব ঘটনাকে জিইয়ে রেখে যুদ্ধাপরাধীদের চলমান আন্দোলনকে ভন্ডুল করতে চাইছে? নাকি যুদ্ধাপরাধীদের নানান প্রশ্ন আসছে মাথার মধে‍্য। এসব জটিল প্রশ্নের উত্তর আমাদের জানা নেই। তবে দেশের পরিস্থিতি যে মোটেও ভালো নেই তা কেউ কী অস্বীকার করবেন?
সাংবাদিকরা বেডরুম, রাজপথ, নিজের অফিস কোথাও কী নিরাপদ আছেন? নাকি সরকার কোন নিরাপত্তা দিতে পারছে সাংবাদিকদের? সাংবাদিক হত‍্যা-নির্হযাতনের ঘটনাগুলির কী কোন কার্যকর তদন্ত করতে পেরেছে সরকার? অতীতের সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতনের কথা বাদই দিলাম। মহাজোট সরকারের আমলে সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতনের কতগুলি ঘটনা ঘটলো! কোন ঘটনায় সঠিক ও সন্তোষজনক তদন্ত করতে পেরেছে সরকার? বরং তদন্তের নামে সরকার নাটক করছে। অন্ততপক্ষে সাগর-রুনির হত‍্যাকান্ডের ঘটনা তারই প্রমাণ দেয়। প্রায় চার মাস অতিবাহিত হলো, কিন্তু সাগর-রুনির খুনিরা ধরা পড়েনি।
হত‍্যার আগে সাংবাদিক সাগর-রুনি বিষ পান করেননি কিংবা তাদেরকে বিষপ্রয়োগ করা হয়নি। ভিসেরা রিপোর্টে একথা বলা হয়েছে। গত ১১ ফেব্রুয়ারি চাঞ্চল‍্যকর এই হত‍্যাকান্ড ঘটে রাজধানী ঢাকায়। এরপর নানান নাটকীয়তার পর পুলিশ তদন্ত কাযর্ক্রম বিষয়ে নিজেদের ব‍্যর্থতা স্বীকার করে আদালতে। এরপর আদালত (সর্বোচ্চ আদালত) সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব‍্যবহার করে সাগর-রুনি হত‍্যা মামলা তদন্তের ভার দেয় এলিট ফোর্স র‍্যাবকে। সেই বিশেষ বাহিনীও এখন পর্যন্ত কোন খুনিকে শনাক্ত করতে পারেনি। তদন্ত কার্যক্রম কতদূর এগিয়েছে তাও দেশবাসি জানতে পারেননি আজও। সাগর-রুনির খুনিদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে সাংবাদিকদের “লোকদেখানো: আন্দোলন চলছে। সাংবাদিক ঐক‍্য নিয়ে ব‍্যাপক আলোচনা ও সুন্দর সুন্দর বক্তব‍্য দিলেও সাংবাদিক নেতারা আজ পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে বিভক্ত সাংবাদিক ইউনিয়নকে এক করতে পারেননি। জাতীয় প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটি, ফটো সাংবাদিক এসোসিয়েশন, বিভক্ত সাংবাদিক ইউনিয়নসহ অন‍্যান‍্য সাংবাদিক ও এনজিওসাংবাদিক সংগঠনগুলির ঐক‍্যবদ্ধ কোন স্টিয়ারিং কমিটি বা মোর্চাও গড়ে ওঠেনি।
হালআমলে সাংবাদিক নির্যাতনে পুলিশ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। পুলিশ কেন সহিংস হয়ে উঠলো সাংবাদিকদের ওপর? এনিয়ে হয়ত কোন গবেষণা পরিচালনা করলে চাঞ্চল‍্যকর তথ‍্যও বেরিয়ে আসতে পারে! চলতি মাসে ধানমণ্ডিতে বাসচাপায় ইংরেজি দৈনিক দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক বিভাস চন্দ্র সাহা নিহত হন। এরপর বিক্ষুব্ধ সাংবাদিক ও স্থানীয় জনতাকে লাঠিপেটা করে ধানমন্ডি থানা পুলিশ। ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোপালগঞ্জের হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আজও কোন ব‍্যবস্থা নেয়া হয়নি। যদিও সাংবাদিকদের “ভাসুরের নাম মুখে আনতে মানা” জাতীয় আন্দোলন কর্মসূচী চলছে! কিন্তু মনিরের খুঁটিতো প্রধানমন্ত্রির কার্যালয় পর্যন্ত পোতা আছে। কে নড়াতে পারে সেই খুঁটি?
আজ (২৯ মে) আবার পুলিশের আক্রমণের লক্পুষ‍্যবস্রাতু হলেন সাংবাদিক। পুরান ঢাকার আদালতপাড়াযর এ ঘটনায় আহত তিন সাংবাদিক হলেন প্রথম আলোর আদালত প্রতিবেদক প্রশান্ত কর্মকার, কালের কণ্ঠের আদালত প্রতিবেদক এম এ জলিল উজ্জ্বল ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের আদালত প্রতিবেদক তুহিন হাওলাদার। এর আগে গত ২৬ মে দায়িত্ব পালনের সময় আগারগাঁওয়ে পুলিশি পিটুনির শিকার হন প্রথম আলোর তিন আলোকচিত্র সাংবাদিক খালেদ সরকার, সাজিদ হোসেন ও জাহিদুল করিম। এই ঘটনায় হাইকোর্ট তিন পুলিশ কর্মকর্তার কাছে ব‍্যাখ‍্যা চেয়ে তলব করেছে। ব‍্যাখ‍্যা চাওয়ার কী আছে? সংবিধানতো স্পষ্ট বলে দিয়েছে কোন অবস্থাতেই কেউ কাউকে নির্যাতন করতে পারবে না। হাইকোর্টে এর আগেও পুলিশ সাগর-রুনির হত‍্যা মামলার তদন্ত বিষয়ে ব‍্যর্থতা স্বীকার করলেও আদালত সেই ব‍্যর্থ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোন ব‍্যবস্থা নিয়েছে বলে জানা যায়নি। বিচার বহির্ভূত হত‍্যাকান্ড বিষয়েও কোটর্ অসংখ‍্যবার রুল জারি করেছে, সংশ্লিষ্টদের আদালতে তলব করে ব‍্যাখ‍্যা দাবি করেছে। কিন্তু তাতে কী বিচার বহির্ূভত হত‍্যাকান্ড বন্ধ হয়েছে? বরং গুপ্ত হত‍্যা ও গুম বেড়েছে। যেগুলির সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ উঠেছে।
২৮ মে বিডিনিউজ২৪ এর কার্যালয়ে ঘটলো সন্ত্রাসী হামলা ও সাংবাদিক-কর্মচারিদের ওপর আক্রমণ। এরপর কোথায় কে আক্রমণের শিকার হবে তা বলা মুশকিল! বিডিনিউজ এর রিপোর্ট অনুযায়ী, কিছুদিন আগে সাতক্ষীরায় এক সাংবাদিককে একটি রিপোর্টের জন্য মারধর করে হাত পা বেঁধে নদীর পাড়ে ফেলে আসা হয়েছে। দেশে সরকারের টার্গেট বিরোধী রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা! আর পুলিশ ও সন্ত্রাসীদের আক্রমণের লক্ষ‍্যবস্তু হলেন সাংবাদিকরা। দেশে আইনের শাসন থাকলে, গণতন্ত্র বলতে যা বোঝায় বাস্তবে তার চর্চা থাকলে আজ দেশের অবস্থা এমনটা হতে পারতো না!
কিছুক্ষণ আগে ফেইসবুকের এক স্ট‍্যাটাস থেকে জানা গেলো যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রি রেগে গেছেন! সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করার পরই তিনি নাকি বলেছেন যে, “কথা থাকলে অফিসে আসেন। এখানে একটি অনুষ্ঠানে এসেছি।” আসলে রেগে যাওয়ার বাইরে উনাদের আর কী-ই বা করার আছে বলুন? এই ব‍্যর্থদের কারণেইতো দেশ, দেশের মানুষের এতো কষ্ট। বিএনপি-জামাত আমলে আমরা শুনেছি আল্লাহর মাল আল্লায় নিয়ে গেছে। আর এখন শুনতে হচ্ছে ২৪ ঘন্টা, শিগগির ইত‍্যাদি।
বিডিনিউজ এর কার্যালয়ে হামলা ও সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া যুবক জাহেদুল ইসলাম সৌরভ নিজেকে সরকারি দল আওয়ামী লীগের যুব সংগঠন যুবলীগের কর্মী বলে দাবি করেছে। এই যুবক হামলার দায়ও নাকি স্বীকার করেছে! স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রি শামসুল হক টুকু বলেছেন,”কোথাও সাংঘর্ষিক অবস্থা সৃষ্টি হলে সেখানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করার সময় সংবাদকর্মীরা নিরাপদ দূরত্বে থাকলে অনেক ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া যাবে।” বাহ্ চমৎকার পরামর্শ! শুনেছি এই প্রতিমন্ত্রির এক ছেলে শান্তি, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের দেশ নরওয়েতে এসেছিলেন পড়ালেখা করতে। তিনি নাকি এখন সেই দেশেই থাকার প্রচেষ্টা করছেন। টুকু সাহেবকে বলবো প্লিজ আপনরার ছেলেকে জিজ্ঞাসা করুন নরওয়েতে পুলিশ কী ধরণের ব‍্যবহার করে একজন সাধারণ মানুষের সঙ্গে? ছেলের কাছ থেকে গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক চর্চা, মানবাধিকার, আইনের শাসন ও সভ‍্য সমাজ সম্পর্কে একটা ধারণা পেলেও যদি আপনাদের মতিভ্রম কাটে! তাতেও দেশের মানুষ লাভবান হবেন-নিশ্চয়ই।
প্রতীকি প্রতিবাদে জীবনেও সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতন বন্ধ হবে না ওখানে! নিরাশাবাদী ভাইবেন না প্লিজ! মুখের কথা, প্রতীকি প্রতিবাদে, শোক প্রকাশ আর দু’একটি মানববন্ধন, ঘেরাও ও বিবৃতিতে কোন কাজ হবে না। চাই সাংবাদিকদের মাঝে একতা, ঐক‍্যবদ্ধ মহাঐক‍্য। যা কেবল সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতন নয় দেশের আমূল পরবর্তনও ঘটাতে সক্ষম হবে বলে আমার বিশ্বাস এবং আশা। সেই জায়গাটাতে আমরা কী করে যাবো বা কী করে পাবো? শোক প্রকাশ বা নিন্দা জানানো কিংবা প্রকাশের সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেছে। দরকার সাংবাদিকদের মহাঐক‍্য, পেশাদার সাংবাদিকদের ঐক‍্য, এবং সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতনের বিপরীতে একটা ঐক‍্যবদ্ধ সাংবাদিক সংগঠনের পতাকাতলে দুর্বার আন্দোলন। সেই আন্দোলনের ফসল হিসেবে হয়ত দেশের মানুষ মুক্তিও পেতে পারেন দুর্নীতি, দু:শাসন, হত‍্যা, নির্যাতন, মানবাধিকার লংঘণ ও আইনের শাসনহীনতা থেকে!
ফেইসবুকে আমার কাছে একটি প্রশ্ন কতরেছেন একজন প্রিয় মানুষ। এই প্রশ্নের উত্তর দেবার ব‍্যর্থ চেষ্টা করেই লেখার উপসংহারে যাবো। প্রশ্নটি হলো এমন, “ভোর হবার আর কত দেরি (বাংলাদেশে)?
আমাদের স্বদেশের চলমান নিরাশ‍্যজনক অবস্থায় এই প্রশ্নের উত্তর বোধহয় প্রকৃতিও দিতে ভয় পাবে! আমার কাছে কোন জবাব নেই! নিজের জান-মাল, মান-সম্মান, মর্যাদা সবকিছুই ওই দুবর্ৃত্ত রাজনীতির হাতেই আটকা পড়েছে! দুবর্ৃত্ত রাজনীতির বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসার বা বার করে আনার উপায়টা দেখাবে কে? সেই উজ্জ্বল সময়ের অপেক্ষায় আমরা সবাই! ছবি বিডিনিউজ২৪ থেকে নেয়া।

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s