অধ‍্যাপক আবু সায়ীদ’র বক্তব‍্য সমাজ বাস্তবতার প্রতিচ্ছবি


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। স্বদেশের একজন আলোকিত মানুষ, সমাজ সংস্কারক আধুনিক ও প্রগিশীল চিন্তাবিদ অধ‍্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। আলোকিত মানুষ তৈরির আন্দোলনের অগ্রনায়ক। সেই মানুষটির ওপর আজ হামলে পড়েছে একদল আইন প্রণেতা! তিনি কী এমন বললেন যে তাতে তাঁর ওপর এমন আক্রমণাত্মক ভূমিকায় নামতে হবে সসদ সদস‍্যদেরকে?
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ ‘সাংসদ ও মন্ত্রীরা চোর-ডাকাতের মতো আচরণ করেন এবং শপথ ভঙ্গ করেন’ এমন মন্তব‍্য করেছেন বলে দেশের একটি দৈনিক তা প্রকাশ করে। এরই প্রেক্ষিতে জাতীয় সংসদের কতিপয় সদস‍্য সংসদে ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাদের দাবি এই অধ‍্যাপককে সংসদে তলব করা হোক। শুধু তাই নয় অধ‍্যাপক সায়ীদকে ক্ষমা চাইতে হবে!
অন‍্য একটি জাতীয় দৈনিক লিখেছে অধ‍্যাপক সায়ীদের বক্তবে‍্য সরাসরি এমপি-মন্ত্রির নাম নেয়া হয়নি। তবুও তর্কের খাতিরে যদি ধরেই নিই যে অধ‍্যাপক সায়ীদ উপরোক্ত মন্তব‍্যটি করেছেন তবে কী তিনি কোন মিথ‍্যা কথা বলেছেন? হয়ত সব সংসদ সদস‍্যই এই মন্তবে‍্যর ভেতরে পড়বেন না। কারণ বগু ত‍্যাগি ও সৎ সংসদ সদস‍্যও আছেন মহান সংসদে। কিন্তু আমরা কী কেউ বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবো যে সংসদস‍্য সদস‍্যদের মধে‍্য কেউ কেউ অস্ত্রবাজি করে না বা ছাত্রাবস্থায় করেনি? সংসদ সদস‍্যরা কী দুনর্ীতির সঙ্গে জড়িত নয়? দুনর্ীতি যেখানে সংস্কৃতি ও সমাজের অংশ হয়ে গেছে সেখানে কী আমাদের সংসদ সদস‍্যদের ধুয়া তুলসিপাতা বলা যাবে? সংসদ সদস‍্যরা কী নির্বাচনে কোটি কোটি টাকা ব‍্যয় করে সংসদ সদস‍্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন না? সংসদ সদস‍্যদের আত্মীয়-স্বজনদের বিরুদ্ধে কী হত‍্যা-সন্ত্রাস ও দুনর্ীতির ভিযোগ ওঠে না?
অধ‍্যাপক আবু সায়ীদের বিরুদ্ধে সংসদ সদস‍্যরা জিহাদী ভূমিকায় নেমেছেন! কিন্তু স্বৈরাচারি এরশাদ, হাসিনার মহাজোট সরকারের প্রধান অংশীদার এইচএম এরশাদতো আরও একধাপ বাড়িয়ে সংসদকে রীতিমতো ‘অসভ‍্য’ বলে অভিহিত করেছেন। দৈনিক আমাদের সময় এর ৪ জুনের সংখ‍্যায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে এরশাদ বলেছেন, “দেশে চলছে লুটপাট ও লুণ্ঠন। কৃষকেরা ধানের ন‍্যায‍্য মূল‍্য পাচ্ছেন না। কর্মসংস্থান নেই। দেশে কোন গণতন্ত্র নেই, সুশাসন নেই, সভ‍্য সংসদ নেই।”
এই ‘বিপ্লবী’ সংসদ সদস‍্যরাই হাসিনার নৌকা ডুবানোর জন‍্য যথেষ্ট। বিরোধী দলকে কিছুই করার লাগবে না! ফেইসবুকে সুইডেনপ্রবাসী ও শহীদ বুদ্ধিজীবীর সন্তান শেখ তসলিমা মুন স্ট‍্যাটাসে লিখেছেন “কি হচ্ছে এসব? সংসদে কি আল্লাহর পবিত্র সন্তানেরা ?শেখ হাসিনার উপদেষ্টারা কি রিটায়রড হয়ে গেছেন? কি হচ্ছে এসব?” তাঁর এই স্ট‍্যাটাসের ওপর মন্তব‍্য করেই লেখার ইতি টানবো।
শেখ হাসিনাকে উনারা সবাই ভালো করেই চেনেন, বুঝতে পারেন তাই চুপচাপ। নইলে চাকরি নাই! আর এই মহীয়সী! নারী চরম একরোখা, জেদি এবং যা বোঝেন তাই কোরান বাইবেল। পৃথিবীতে এমন কোন শক্তি নেই তার থেকে উনাকে এক চুল পরিমাণ নড়াতে পারে! সংসদের “ব‍্যবসায়িরা” (সবাই নন, অনেকে, যারা কেবল কালো টাকা ও কালো ব‍্যবসার কারণেই নমিনেশন পেয়েছিলেন এবং আগামিতেও পাবেন হাসিনা এবং খালেদা উভয়ের কাছ থেকেই) সম্ভবত বাংলাও ভালো বোঝেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে? ক্ষমতার পালাবদলের খেলায় হাসিনা ও খালেদা এবং তাদের মুরিদ-সাগরেদদেরতো কিছু হবে না। সমস‍্যা কেবল মানুষ, সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষদেরই। তসলিমা মুন আরেক স্ট‍্যাটাসে বলেছেন, “মূর্খ রাজার আমলে সজ্জন মানুষদের অপদস্ত হতে হয় জানি।” তবে আমি এদেরকে মুর্খ বলতে চাই না। এরা জ্ঞানপাপী এবং এদের দিন শেষ। আবার যুদ্ধাপরাধীরাই ক্ষমতার মসনদে বসবে তারই একটা ছক তৈরী করছে এই তখাকথিত প্রগতিশীলরা! আসলে রাজনৈতিক দুবর্ৃত্তায়নের শেকড়গুলি কতদূরে তা বোঝা যায় এসব মানুষের ঔদ্ধত‍্য দেখে!
সভ‍্য ও গণতান্ত্রিক চচর্া যে সমাজে নেই যেখানে রাজনীতি দুবর্ৃত্তায়নের জালে আটকা থাকে সেই সমাজে সত‍্য উচ্চারণ বিনা চ‍্যালেঞ্জে যেতে পারে কী? অধ‍্যাপক সায়ীদতো সত‍্য উচ্চারণ করে নাগরিক দায়িত্ব পালন করেছেন। অধ‍্যাপক আবু সায়ীদ এর বক্তব‍্যতো জনগণের মনেরই কথা। আমাদের দলীয় বুদ্ধিজীবীরা কেন নিরব আছেন বা থাকছেন? আমরা আশা করবো স্বদেশে দলমতের উদ্ধর্ে ওঠে বুদ্ধিজীবী ও সুশিল সমাজ সতে‍্যর পক্ষে এক কাতারে এসে দাঁড়াবেন। ছবি গুগল থেকে নেয়া।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s