শেষবিচারে রসুন-পেঁয়াজের মতোই মিলন ঘটে!

জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। “শালা সাংবাদিক! তোদের জন্য ইচ্ছামতো কিছু করতে পারি না। আবার আন্দোলন করিস। এমন মামলায় ফাঁসাবো যে সারা জীবন জেলের ভাত খেতে হবে।” ঢাকায় ডিবি কার্যালয়ে এভাবে একটি অনলাইন সংবাদ সংস্থার অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক মোস্তাফিজুর রহমান সুমনকে গালমন্দ করে তার ওপর শারীরীক নির্যাতন চালানো হয়।
র‍্যাব কর্মকর্তা (রাজশাহী-৫ এ কর্মরত ছিলেন, সম্ভবত এখন তিনি র‍্যাব-১ এর কমান্ডার) রাশীদুল হাসান ২০০৭ সালে আমাকে র‍্যাবের নির্যাতন ক‍্যাম্পে ঝুলিয়ে রেখে নির্যাতন করেন এবং “শালা শুয়োরের বাচ্চা, র‍্যাব দেখেছিস র‍্যাবের কাম দেখিসনি। খায়রুজ্জামান লিটনের নামে রিপোর্ট করার মজা বুঝিয়ে দেবো, তোর সাংবাদিকতাকে ‘পা…’ ঢুকিয়ে দেবো।” ইত‍্যাদি আরও কত অসভ‍্য ও অশ্রাব‍্য ভাষায় গালমন্দ করেছেন তিনি।
জামাতপন্থি রাশিদুল হাসানদের দাপট কোনদিনও কমবে না ওই দেশে যতদিন না সেখানে আইনের শাসন, জবাবদিহিতা ও ন‍্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা না পাবে। আর সাংবাদিক হত‍্যা-নির্যাতন চলতেই থাকবে। নিজ রাজনীতি ও স্ব-ব‍্যবসা রক্ষা এবং মালিকপক্ষকেতুষ্টির নামে যে সাংবাদিকতা (ব‍্যতিক্রম অবশ‍্যই আছে কিন্তু তাকে উদাহরণ হিসেবে ধরা যাবে না) চলছে তারও অবসান হবে না কখনও! তাই এভাবে মার খেতে হবে, নতুবা কলমটাকে কারও না কারও পক্ষে (সতে‍্যর পক্ষে কিংবা প্রভাবশালী, ক্ষমতাবানদের বিপক্ষে নয়) নতজানু করে রাখতে হবে সারাক্ষণ।
একের পর এক, সাংবাদিকরা মার খাবেন কিংবা নিহত হবেন আর আমাদের সাংবাদিক সংগঠন ও নেতারা আন্দোলনের নামে মিডিয়ার শিরোনাম হবেন; বড় বড় চাপাবাজির (হেন করেঙ্গা তেন করেঙ্গা!) বক্তব‍্য দেবেন কিন্তু শেষবিচারে রসুন আর পেঁয়াজের মতো এক কাতারে (নির্যাতনকারি বা তাদের আশ্রয়দাতাদের) গিয়ে দাঁড়াবেন।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s