পা গেছে মামলাও গেলো!


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। লিমনের পা গেলো। তার নামে মামলা ঝুলছে। এই পঙ্গু (প্রতিবন্ধি) ছেলেটার মায়ের করা মামলাটি থেকে রেহাই পেলো রাষ্ট্রীয় “খুনি” বাহিনী! কিন্তু লিমনের রেহাই নেই। সবাই দুষছেন র‍্যাবকে। আমিও তাই করি মাঝে মধে‍্য। কিন্তু আসলে র‍্যাব দায়ি নয়। দায়ি আমাদের দুবর্ৃত্ত রাজনীতি এবং হাসিনা, খালেদা এবং তাঁদের জোটভুক্ত সকল রাজনৈতিক দল এবং মিডিয়া আর দলীয় বুদ্ধিজীবীরা। কেউ দায় এড়াতে পারবে না। খালেদা জন্ম দিলো বিচার বহিভর্ূত হত‍্যাকান্ড আর নির্যাতনের, হাসিনা সেই পথই অনুসরণ করছেন। আগে গণহারে ক্রসফায়ারের নামে মানুষ হত‍্যা হতো। এখন এমন অবস্থা গুম হচ্ছে, লাশও মিলছে না! আইনের শাসন, গণতন্ত্র, সহনশীলতার অনুশীলন ছাড়া এসব হত‍্যা- নির্যাতন বন্ধ কিংবা সুশাসন কোনদিনও আসবে না স্বদেশে।
রাজশাহীতে মজনু যিনি ওয়ার্কাস পার্টির নেতা ছিলেন তাকে ২০০৭ এর ১৮ মে রাতে র‍্যাব পিটিয়ে হত‍্যা করে। সেই ঘটনায় মামলা হলো, কিন্তু পুলিশ আজও অভিযোগপত্র দিলো না, আদালতও কিছু বলে না। অন‍্যদিকে স্থানীয় মেয়র হাসিনার প্রিয় খায়রুজ্জামান লিটন র‍্যাবের হয়ে দুতিয়ালি করছেন র‍্যাবের নামে দায়ের করা মজনু হত‍্যা মামলাটি তুলে নেবার জন‍্য! আর মজনুর পার্টির নেতা ফজলে হোসেন বাদশা এখন সদর আসনের সংসদ সদস‍্য। তাঁর মতো একজন নেতা ও এমপি থাকা সত্ত্বেও মজনু হত‍্যা মামরার কোন সুরাহা হলো না। উল্টো মজনুর পরিবারের সদস‍্যদেরই মিথ‍্যা মামলায় ফাঁসালো ও নির্যাতন করলো র‍্যাব। এই দেশ, রাষ্ট্র, সমাজ, সুশিল সমাজ, মিডিয়া, বুদ্ধিজীবী, রাজনীতি যেন কারই কিছু করার নেই অবিচার ও হত‍্যা-নির্যাতন বন্ধ করার ক্ষেত্রে? কিই বা করার আছে সবাইতো ব‍্যস্ত আছি আপন আপন ব‍্যবসাপাতি ও রাজনৈতিক দর্শন নিয়ে।
মানবতা, মনুষ‍্যত্ব, ন‍্যায়বিচার নিরবে নয় এখন সরবেই কাঁদছে বাংলার আকাশে-বাতাসে সেই কান্বানার সাথে কখনও আবার যুক্ত হচ্ছে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম‍্যান অধ‍্যাপক মিজানুর রহমানের চোখের জলও। তাঁর চোখমুজার দৃশ‍্য দেশবাসি দেখেছেন লিমন যখন হাসপাতালের বেডে শুয়ে জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করছিলেন ঠিক তখন। ড। মিজানের গালগল্প আর মানবাধিকার নেতা-সংগঠনগুলির পেপারওয়ার্ক সর্বস্ব কর্মকান্ড কোনকিছুই লিমনদেরকে ন‍্যায়বিচারের আলো দেখাতে পারছে না। কেয়ামতের পরেও হয়ত সেই আলো দেখার সৌভাগ‍্য হবে না বাংলার মানুষের! কারণ সেখানে ন‍্যায়বিচার, আইনের শাসন, গণতন্ত্র চর্চা হয় না, হচ্ছে গালমন্দ আর অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের সংস্কৃতির চাষ! বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ দলীয়করণ, সর্বনাশা দুর্নীতি, ঘুষখোর-সুদখোর-চাঁদাবাজ আর আয়ের সঙ্গে ব‍্যয়ের সঙ্গতিহীন জীবনের বেপরোয়া গতি সব ধ্বংস করে দিচ্ছে আশা-ভরসাগুলি।
দেশের অসুস্থ‍্য ও পচা-দুর্গন্ধময় রাজনীতি থেকে জাতি রেহাইল পেলেই কেবল লিমনরা ন‍্যায়বিচার পাবেন। সেই দিনটির জন‍্য হয়ত আরও অনেক কাল-যুগ আমাদের সংগ্রাম করতে হবে, সইতে হবে, ত‍্যাগ স্বীকার করতে হবে আরও অনেক, অনেক সময়! কার্টুন এই ছবিটি বিখ‍্যাত কার্টুনিষ্ট শিশির ভট্রাচার্যে‍্যর, গুগল থেকে নেয়া।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s