কালোটাকাযুক্ত অসৎ রাজনীতিকে নয়া তথ‍্যমন্ত্রি চ‍্যালেঞ্জ করবেন কী?


জাহাঙ্গীর আলম আকাশ ।। কাজে নয় কথাতেই বড় হয়ে গেছি আমরা। না সবাই না, কেউ কেউ বড় বড় কথা বলি কিন্তু কাজের বেলায় সব শূণ‍্য। স্বদেশে বাস্তবে যা হয় হোক কিন্তু কারও কারও কথা আর বক্তৃতা শুনলে মনে হতে বাধ‍্য যে “দেশে দারিদ্র নেই, সমস‍্যা নেই, অন‍্যায় নেই, অবিচার নেই, ন‍্যায়বিচার ও গণতন্ত্রের স্বর্গরাজে‍্য বাস করছেন বাংলাদেশের মানুষ”।
সভ‍্যতা আর সময় যতই আধুনিকতার দিকে টানছে সমাজকে; ততই যেন আমরা নীতিহীনতা, অনৈতিকতা আর কথামালার ভেতরেই আটকে পড়ছি। নয়া তথ‍্যমন্ত্রি এককালের বিপ্লবী আজকের মহাজোট নেতা হাসানুল হক ইনু বলেছেন, “সঠিক তথ্য জনগণের কাছে তুলে ধরা এবং খণ্ডিত তথ্য, মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন, তথ্য আড়াল করা, অসৎ তথ্য প্রচার ও অসৎ সাংবাদিকতাকে নিরুৎসাহিত করার চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করব।” সাহসী ও সময়উপযোগি এই বক্তব‍্য আর যাইহোক অন্তত: সৎ সাংবাদিকতা পক্ষে যারা লড়ছেন তাদের কাছে এক অমোঘ বাণী। জনগণের কাছে সঠিক তথ‍্য তুলে ধরাই সাংবাদিকতার মূল উদ্দেশ‍্য। কাজেই তথ‍্যমন্ত্রি মহোদয়কে ধন‍্যবাদ এমন বাস্তবসম্মত ও বিবেবচনাপ্রসূত বক্তব‍্য জাতির সামনে তুলে ধরার জন‍্য। দেশে অসৎ সাংবাদিকতা হয় না তাও কেউই বুকে হাত দিয়ে বলার সাহস রাখেন না। সৎ ও অসৎ উভয় সাংবাদিকতাই বলবৎ আছে বাংলার জমিনে। ব‍্যক্তিগতভাবে আমি নিজে হাসানুল হক ইনুর কাছে ঋণী এবং কৃতজ্ঞ। উনার এলাকার একজন লে. কর্ণেল রাজশাহী র‍্যাবের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছিলেন ২০০৭ সালে। র‍্যাব আমার ওপর কেন অন‍্যায় করছে তার জন‍্য তিনি সেই কর্মকর্তার কাছে জানতে চেয়েছিলেন। কিন্তু র‍্যাবের সেই লে.ক. আমার সম্পর্কে মিথ‍্যা তথ‍্য তুলে ধরেছিলেন জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনুর কাছে।
এখন প্রশ্ন হলো মাননীয় তথ‍্যমন্ত্রি কী মিথ‍্যা তথ‍্য উপস্থাপনকারিদের কেবল নিরুৎসাহিত করার মধে‍্যই সীমাবদ্ধ থাকবেন নাকি তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব‍্যবস্থাও নেবেন-সেটা পরিস্কার বোঝা যাচ্ছে না। আশা করি জাসদ নেতা ইনু মুক্তিযুদ্ধের অন‍্যতম সংগঠক জাসদ নেতা কাজী আরেফ আহমেদ হত‍্যার নেপথে‍্যর নায়কদেরকেও জাতির সামনে পরিচিত করানোর উদে‍্যাগ নেবেন। আরেকটি বিষয় উল্লেখ করতে চাই। জনাব ইনু দেশে রাজনীতিতে যে কালো টাকার প্রভাব ও টাকাওয়ালাদের দলীয় মনোনয়ন দেয়ার জঘণ‍্য প্রতিযোগিতা এবং যে অসৎ রাজনীতি সেইসব দুবর্ৃত্তায়নকে তথা অসৎ রাজনীতিকে চ‍্যালেঞ্জ করবেন কিনা সেব‍্যাপারে নতুন তথ‍্যমন্ত্রি কিছু বলেননি। কালোটাকাযুক্ত অসৎ রাজনীতিকে তিনি মর্যাদার আসনে বসাবেন নাকি তাকেও চ‍্যালেঞ্জ করবেন সেটা বোঝার উপায় নেই!
বিডিনিউজ লিখেছে, জয়পুরহাটে অনে‍্যর জমি দখল করে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সাইনবোডর্ লাগানো হয়েছে। বিএনপি-জামাত জোটের আমলেও এমন দখলঘটনা ঘটেছে। কাজেই কার্যত বিএনপি-আওয়ামী লীগের মধে‍্য পাথর্ক‍্য দেখা যায় না। “যেই যায় লংকা সেই হয় রাবণ” জাতীয় রাজনীতিকে তথ‍্যমন্ত্রি নিরুৎসাহিত করলে জাতি উপকৃত হতো।
বাংলাদেশের নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রি মহীউদ্দিন খান আলমগীর বলেছেন, ‘অপারেশন ক্লিনহার্টে হত্যারহস্যও উদঘাটিত হবে’ (সূত্র-বিডিনিউজ২৪)। আমরা জানি বিএনপি-জামায়াদত জোট সরকার ক্লিনহাটর্ অপারশেনর নামে ৫৮ জন মানুষকে হত‍্যা করেছিল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রির এই বক্তব‍্যও প্রশংসার দাবি রাখে। কিন্তু প্রশ্ন জাগে, মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার আগে বিচার বহিভূর্ত হত‍্যাকান্ড বন্ধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু এখন তার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই বলেছিল যে ফখরু-মঈনের নেতৃত্বাধীন সেনা সরকারের আমলে নিপীড়ন-নির্যাতনকারি সকলের বিচার করা হবে। কিন্তু একজনেরও বিচার হয়নি আজও। কাজেই আমরা আমজনতা কথা শুনতে চাই না আর, অনেক শুনেছি। এবার কাজ করে দেখান প্লিজ! জনাব আলমগীর আরও বলেছেন, সব ঘটনা বিচার ‘বহির্ভূত হত্যার সংজ্ঞায়’ পড়ে না। অনুগ্রহ করে যদি আপনি বিচার বহিভূর্ত হত‍্যার সংজ্ঞাটি জাতি জানাতেন? বিএনপি-জামাত জোট করেছে ওদের সময় বেশি হয়েছে ইত‍্যাদি বলে পার পাবেন না। জনগণ “ভোটঅস্ত্র” দিয়ে আপনাদের বাগড়ম্বর ও মিথ‍্যাচারকে ধুলিস‍্যাৎ করে দেবে এতে কোন সন্দেহ নেই। কাজেই সাধু সাবধান! এখনও সময় আছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার। নইলে নিজামীরা আবার ক্ষমতায় আসবে!
রাজশাহী বিশ্ববিদ‍্যালয়ের তরুণ শিক্ষক কাজী জাহিদ অফিসিয়ালি বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটি (বিসিএস) এর মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করতে যাবার প্রাক্কালে ফেইসবুকে দেয়া এক স্টাটাসে সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন। এরই প্রেক্ষিতে আমার প্রতিক্রিয়া জানানোর মধ‍্য দিয়েই লেখাটির ইতি টানবো।
দোয়া নেই, প্রত‍্যাশা আছে-সবাই ভালো করুন। তবে সততা, নীতিবোধ আর দল-মতের উদ্ধর্ে উঠে কাজ করার মতো পরিবেশ এখনও স্বদেশে গড়ে উঠেনি। আমি জানি সবাই বলবেন আমি হতাশাবাদি, মোটেই না। তাই বলে কী ভালো মানুষ, সৎ মানুষ নেই। আশি ভাগেরও বেশি মানুষ একেবারেই নির্ভেজাল-আমার বিশ্বাস। কিন্তু সেই ২০ ভাগের দাপট-ব‍্যবসা-বাণিজ‍্য, পরিবার, দলপ্রীতি আর ক্ষমতার অপব‍্যবহারই সবকিছুকে কেড়ে নিয়ে যাচ্ছে সর্বনাশা সাইক্লোনের মতো! আমার চোখে দায়ি পচা ও দুর্গন্ধময় রাজনীতি। আর সেই রাজনীতির পরিশীলীত রুপ সদর্পে বেরিয়ে না আসা পর্যন্ত মানুষের মুক্তি নেই। ছবি-বিডিনিউজ২৪, গুগল থেকে নেয়া।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s