সংসদে আরও কত মাওলা রনি আছেন?

Jahangir Akash

জাহাঙ্গীর আকাশ ।। সাংবাদিক একের পর এক মার খাবে। এতে কার কী আসে যায়? সাংবাদিক মারলে কী হয়? কিচ্ছু না! সাংবাদিক নির্যাতন আর হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটবে। একের পর এক এমন ঘটনা ঘটেই চলেছে এবং তা অব্যাহত রবে। অতীতে এমন অমানিবক নির্যাতন হত্যাকান্ড ঘটেছে। আজও ঘটছে। আগামিতেও ঘটবে। সাংবাদিকরা কী শুধু “সন্ত্রাসী” এমপি কিংবা অনৈতিক “ক্ষমতাবান” রাজনীতিকদের হাতে মার খাচ্ছে? নাকি সাংবাদিকদের পুলিশও মারে, প্যারামিলিটারি ফোর্সের সদস্যরাও মারে। সন্ত্রাসী, গুন্ডা, মাদক ব্যবসায়ি, কে মারে না মিডিয়াকর্মীদের? উত্তর-দক্ষিণ, পূর্ব-পশ্চিম সব দিক থেকেই আঘাত আসছে সংবাদকর্মীদের ওপর। সাংবাদিক নির্যাতন ও হত্যাকান্ড ঘটবে, সাংবাদিক নেতারা গলাবাজি করবে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী বলবে তদন্ত হচ্ছে, রাজনীতিকরা বা মন্ত্রি-এমপিরা বলবে অপরাধি যেই হোক তার শাস্তি হবেই হবে! সরকারি পক্ষকে সমর্থন করে এমন সংবাদকর্মী যদি সরকারিপক্ষের কারও দ্বারা আক্রান্ত হয় তবে সরকার সমর্থক সাংবাদিক নেতা, ইউনিয়ন ব্যাপারটি আপোষ করার চেষ্টা করবে। আর আঘাত যদি সরকারবিরোধিদের কাছ থেকে আসে তবে সরকার সমর্থক সংবাদকর্মী ও নেতৃত্ব জোর গলায় কথা বলবে, রাজপথে নেমে হামলাকারির তুলোধুনো করবে এবং বিচার ও শাস্তি চাইবে। আবার কিছুদিন যেতে না যেতেই সব ফিঁকে হয়ে যাবে। সবকিছু আবার আগের জায়গায় আসবে। সরকারসমর্থক মিডিয়াকর্মী সরকার সমর্থকদের হাতে আক্রান্ত হলে সরকারবিরোধী মিডিয়াপল্লী ডুগডুগি বাজাতে শুরু করবে। আর সরকারবিরোধী মিডিয়াকর্মী সরকার সমর্থকদের হাতে আঘাতপ্রাপ্ত হলে ঠিক একইভাবে ডুগডুগি বাজাবে সরকার সমর্থনকারি মিডিয়াপরিবার। এইতো পাল্টাপাল্টি খেলা আর আঙুল চুষার মধ্যেই হামলাকারি, আঘাতকারির পার পেয়ে যাওয়ার পথ সহজতর হওয়া। আবার যদি প্যারামিলিটারি ফোর্সের দ্বারা কোন সাংবাদিক নিযাতিত হয় তবে মিডিয়াপল্লীর সবপক্ষ তথা ডান কিংবা বাম সকলেই চুপসে পড়বে। কেউ কেউ আবার নির্যানকারিদের পক্ষ নিয়ে দালালিতেও নেমে পড়বে। কারণ বাঘের খাঁচায় পড়েও বাঁচার পথ খোঁজা যায়। কিন্তু এই এলিটফোর্সের ছোঁয়া পড়া মানে জীবন বরবাদ। কারণ অবশ্য একটা আছে সেটা হলো ওরা যে কাউকে যে কোন অজুহাতে প্রকাশ্যে খুন, গুম এমনকি লাশটিকেও গায়েব করে দিতে পারে। জীবনের এই রিস্ক মোকাবেলা করতে কে ওতো ঝুঁকি নেবে, আর নেবেই বা কেন? যেখানে খোদ হাসিনা এবং খালেদাও এই ফোর্সকে এগিয়ে নিতে চাইছেন, নিচ্ছেন সেখানে সুবিধাবাদ ও তোষামোদির এই বাংলায় কে অন্যায়-অবিচার আর নির্যাতনের বিপক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়ে একটা খুনি বাহিনীর বিপরীতে পেশা, পেশার মর্যাদা ও সহকর্মীদের পক্ষে দাঁড়ানোর সাহস দেখাতে পারে? এমন আশা করাটাও এক ধরণের বাড়াবাড়িই বটে! সম্প্রতি ঘটে যাওয়া সাংবাদিক নির্যাতনের সর্বশেষ ঘটনায় সরকার দলের এক সংসদ সদস্য সরাসরি জড়িত। আমরা জানি বর্তমান সংসদে এমন বহু রনি আছেন যারা সাংবাদিক নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত। কোন নির্যাতনেরই বিচার হয়নি। তবে হামলাকালে ক্ষতি হওয়া ক্যামেরা, মানিব্যাগ কিংবা মোটরসাইকেল ভাঙচুর বাবদ ক্ষতিপূরণের টাকার পরিমাণ নিয়ে দরকষাকষিতে পারঙ্গম কতিপয় সাংবাদিক নেতা ও ক্ষতিগ্রস্ত মিডিয়াকর্মী ক্ষতিপূরণের অর্থ পেয়েই যেন বেজায় খুশি! ঘটনা ঘটলেই শালিশ বা সমঝোতার নামে ক্ষতিগ্রস্তপক্ষ ও হামলাকারি পক্ষকে এক টেবিলে বসনো হবে। সেই টেবিলে উভয়পক্ষের মুরুব্বিরাও থাকবে। এরপর অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের রাগ-অভিমানি বক্তব্য শেষে সববাই মিলে চা-চক্র কখনও কখনও “ভূড়িভোজ” চলে। আর ১০০ টাকার ক্ষতি হলে ক্ষতিপূরণের অংকটা ১০০০ টাকায় গিয়ে পৌঁছে। ব্যস, হামলাকারিও বাঁচে, নির্যাতনভোগকারিও খুশি মোটা অংকের ক্ষতিপূরণ পেয়ে। ফলে এসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে বারংবার। স্বাধীনতার ৪২ বছরেও দেশে সাংবাদিকতার একটা কার্যকর নীতিমালা গড়ে তোলা যায়নি। আমি যে দেশে এখন থাকি সেই দেশে সাংবাদিকতার নীতিমালা মেনেই মিডিয়া তার দায়িত্ব পালন করে। সাংবাদিক, মিডিয়া সকলেই স্বাধীন। নীতিমালা অনুসরণ করে স্বাধীনভাবে সবাই যার যার দায়িত্ব পালন করে। পেশা, পেশাগত মর্যাদা ও পেশার স্বাধীনতার প্রশ্নে সাংবাদিক ও মিডিয়া প্রতিষ্ঠানগুলি দলমতের উর্দ্ধে ওঠে ঔক্যবদ্ধভাবে কাজ করে। ফলে গণতন্ত্র শাণিত হয়, জনসমস্যা-সংকট ও আকাঙ্খারও প্রতিফলন ওঠে আসে মিডিয়ায়। কিন্তু আমার স্বদেশ।  কী হয় সেখানে? কুড়ি বছরের সাংবাদিকতা জীবনে সেখানে দেখে এলাম শুধু ল্যাং মারামারি আর রাজনৈতিক দলবাজির সাংবাদিকতা! হয় আওয়ামীলিগ বা তার মহাজোটের হয়ে সাংবাদিকতা করা নতুবা বিএনপি বা তার ১৮ দলীয় জোটের পক্ষে নতজানু সাংবাদিকতা! সেখানে তৃতীয় ধারার কথা বলা হয় মাঝেমধ্যেই। এই তৃতীয় ধারাও কখনও কখনও বিলীন হয়ে যায় উপরোল্লিখিত জোট বা মহাজোটের আঁচলে। স্বাধীন ও সৎ সাংবাদিকতা বাধাগ্রস্ত হয় পেশার রাজনীতিকীকরণের মধ্য দিয়ে। কাজেই এমন মার খাওয়া আর সমঝোতার আলোচনা ও ক্ষতিপূরণ আদায়ের খেলা চলতেই থাকবে আমার স্বদেশে। তাইতো সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতনের বিপরীতেও সাংবাদিক সমাজ এক হতে পারে না, পারবেও না কেয়ামতের পরেও না! সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর-রুনির খুনিদের আজও ধরা হলো না, বিচারতো প্রশ্নই ওঠে না! ক্ষমা চাইলে আর বয়কট কললেই কী সমাধান মিলে? দূর প্রবাসে থেকে দেশমাতার জন্য মন কাঁদে, কষ্ট জাগে। হতাশ হবো না, আমি আশাবাদি এসব  মুখে বললেই কী হতাশাকে জালে পুরে রাখা যায় নাকি আশার আলো দেখা যায় দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির অবসান না হওয়া পর্যন্ত???

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s