Monthly Archives: জানুয়ারি 2014

দুবর্ৃত্ত রাজনীতির কী নিষ্ঠুরতম নির্মমতা!

জাহাঙ্গীর আকাশ ।। বীর মুক্তিযোদ্ধা সহিদুল হক (৬৫) সম্মানিভাতার বই বন্ধক রেখে ঋণ নিয়ে জীবনসংসারের চাকাটাকে সচল রাখার প্রাণপন প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দৈনিক প্রথম আলোতে একটি হৃদয়স্পশর্ী রিপোর্ট ছাপা হয়েছে।  চোখে জল চলে এলো ছোট্র এই রিপোর্টটি পড়ে। এটি কী আমার আবেগ, ভাবাবেগ নাকি স্বদেশ, সেখানকার  মানুষ ও জীবনের ওপর দুবর্ৃত্ত রাজনীতির নিষ্ঠুরতম নির্মমতার বিরুদ্ধে মানবমুক্তির আশার আলোর প্রতি আমার হৃদয়ের আকুলতা। সেটা আমার জানা নেই।  

মাতৃভূমির বীর সন্তানদের এই করুণ অবস্থার কারণ দুবর্ৃত্ত রাজনীতি। অথচ আমরা স্বদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রসার ও বিকাশ নিয়ে কত গলাবাজি করেই চলেছি। কোথায় হাসিনা, কোথায় খালেদা, আসলে উনারাতো পরিবার আর ক্ষমতা নিয়ে মেতে আছেন!!!

একজন পতিত স্বৈরাচারকে নিয়ে অপরজন যুদ্ধাপরাধী-জঙ্গিবাদিদের সাথে নিয়ে ক্ষমতার লড়াইয়ে দিনরাত লড়ে চলেছেন, কেউ গদি রক্ষায় আর কেউ চেয়ারে বসার প্রাণান্ত প্রচেষ্টায়। তাই কেউ এলিটফোর্স দিয়ে স্বাভাবিক মানুষকে অস্বাভাবিক দেখিয়ে হাসপাতালে সেবা দেবার নামে গ্রেফতার করছে, আবার কেউ সন্ত্রাসী-যুদ্ধাপরাধিদের ওপর ভর করে বাসা-বাড়ি ও  বাসে, গাড়িতে আগুন দিচ্ছে। জনগণ যেন গাছ, আর উনারা দুইজন হলেন করাত, কাজেই মানুষ যেদিকেই যাবেন কোন ভয় নেই আপনাদের-আপনারা কাটা পড়বেনই করাত দিয়ে!

আসলে মানুষের মুক্তি নেই ওখানে, কোথাও না, কোনভাবেই না যতদিন না লোভী, টাকাওয়ালারা আর দুনর্ীতির জন্মদাতারা জনগণকে শোষণ করা বন্ধ না করে-ততদিন! ওখানে কোন আশা, ভরসা করার মতো কিছু নেই। এভাবেই জীবন, মানুষ, মানবতার নিষ্পেষণই কেবল বাড়বে। প্রিয় মাতৃভূমিতে বাড়ছে কেবল মানুষের ওপর ক্ষমতাবান, লোভী, সুবিধাবাদি, চাটুকার আর দুনর্ীতিবাজ বদমায়েশ রাজনীতিকদের নির্মমতা ও নিষ্ঠুরতার কষাঘাত। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় কী-তাও আমার জানা নেই। 

সুদের কারবার ও ক্ষুদ্রঋণ কিভাবে সহিদুলদের জীবনকে বন্ধকী অবস্থার জালে আটকে দিচ্ছে তারও চিত্র ফুটে উঠেছে প্রথম আলোর ছোট্র ওই রিপোর্টে। যাহোক, ওখানে মুক্তিযোদ্ধারা হতভাগ্য আর হাসিনা-খালেদা ও তাঁদের সাঙ্গপাঙ্গরা সর্বদাই ভাগ্যবান! মুক্তিযোদ্ধা সহিদুল হকের জীবনের এই বাস্তবতা যতদিন না বুঝবেন আমাদের রাজনীতিকরা, বিশেষত: হাসিনা-খালেদারা ততদিনই মানুষের মুক্তি, মঙ্গল হবে না, জ্বলবে না আশার আলো।

Advertisements